*আত্ম কথা……

ভাবনা গুলো ছড়িয়ে যাক সবার প্রাণে…

Tag Archives: ২ টাকা

দুই টাকা

আজ হঠাৎ করে গিয়েছিলাম আজিমপুরে একটা কাজে। কাজ শেষ হওয়ার পর যখন ফিরে আসব তখন এদিক সেদিক ঘুরে চিন্তা করলাম ফাল্গুনে করে মালিবাগ যাই তারপর বাকি রাস্তা হেটে শাহাজাহানপুরে যাব (মানে বাসায়) । তাই ফাল্গুনের কাউন্টরের দিকে গেলাম মালিবাগ পর্যন্ত ভাড়া ১২ টাকা কাউন্টারম্যনকে ২০ টাকা নোট দিলাম ব্যটা আমারে কয় ২ টাকা ভাংতি দেন । মানি ব্যগ খুঁজে ২ টাকার কোন ভাংতি ফেলাম না । বললাম  ১ টাকা আর ৫ টাকা ছাড়া আর কোন ভাংতি নাই।  কাউন্টারম্যন আমারে বলে আমার কাছেও ভাংতি নাই। কি করা কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে দেখছিলাম দেখি যদি কেউ ভাংতি টাকা দিয়ে টিকেট কাটে । কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে থেকে থেকে বিরক্ত হয়ে গেলাম নাহ্‌ কেউ ভাংতি টাকা দিয়ে টিকেট কাটছে না। আবার ঐ দিকে আবার বাস ছাড়ার সময় হয়ে  যাচ্ছে কি করা যায় মাথায় কিছু আসছে না। আর এই বাস ছাড়া অন্য কোন বাস ও নেই মালিবাগ বা শাহাজাহানপুর আসার এটাই একমাত্র ভরসা। কিছুক্ষন পর ২ টা বুড়া-বুড়ি আসল, জানি কোন দিক থেকে আসল খেয়াল করি নাই। এসে টিকেট কাটল আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত খেয়াল করলাম ওদের  ভাড়া দিচ্ছে ১০ টাকার কয়েকটা নোট দিয়ে। নাহ্‌ এরাও কোন ভাংতি টাকা দিচ্ছে না।  মেজাজ তখন আস্তে আস্তে চরম হচ্ছে কাউন্টারম্যনকে দিলাম ঝাঁড়ি টিকেট বেছ ভাংতি টাকা রাখছনা এই সব আর কি। আর  কাউন্টারম্যন ও জবাব দিচ্ছে আমার প্রতিটা কথার আর টিকেট সীল মারছে ওয়ে বিল এ সাইন করছে। এই সময় বুড়া চাচা একটু হেটে আমার দিকে ফিরে তাকাল আমাকে বলল কি হল ? আমি বললাম ভাংতি টাকার জন্য টিকেট দিচ্ছে না বলে আবার কাউন্টারম্যন দিকে মেজাজের এক্সেলেটর বাড়িয়ে তাকালাম। চাচা আগ বাড়িয়ে এসে বলল তোমার ভাড়া কত ? আমি বললাম ১২ টাকা ২০ টাকার নোট দিলাম……চাচা শুনে মানিব্যগ থেকে ২ টাকার নোট বের করে কাউন্টারম্যনকে দিল। আমি কি বলব বা কি করব ওটা চিন্তা করছি আর টিকেটা হাতে নিচ্ছি মনে মনে ভাবলাম ১ টাকার কয়েন টা দিয়া দিমু নাকি? নাকি ৫ টাকার নোট টা? আবার ভাবলাম এটা ঠিক হবে না  । কিছু না বুঝে চাচাকে পিছনে হাটতে হাটতে ডাক দিলাম চাচা শুনেন… উনি বলল চল বাসে উঠি।  আমি বসে উঠে বললাম চাচা ধন্যবাদ । আর কি বলব ভেবে পাচ্ছি না ,  উনার পিছনে গিয়ে বসলাম। আর মনে মনে উনার জন্য দোয়া করলাম। এটা ছাড়া আমার এখন আর কিছুই করার নেই।

এই সেই টিকেট ↓

শেষকথাঃ

২ টাকা কিচ্ছু না হারিয়ে যায়, ফকির কে দিয়ে দিই ইত্যাদি ইত্যাদি কিন্তু এই চাচার এই রকম সাহায্য আমাকে ঠিকই মুগ্ধ করছে । পথে আসতে আসতে পুরটা পথ আমি চাচার কথা ভেবেছি। তার এই ২ টাকার প্রতিদান আমি কখনো শোধ করতে পারবন না। জানিনা হয়ত আর কখন ও উনার সাথে দেখা হবে না , না হওয়াটাই স্বভাবিক তবে উনার এই সাহায্য আমার আজীবন মনে থাকবে। আল্লাহ উনার মঙ্গল করুক সেই দোয়াই করি ।