*আত্ম কথা……

ভাবনা গুলো ছড়িয়ে যাক সবার প্রাণে…

Tag Archives: বাস্তবতা

গল্পটি বাগদাদের

এক সওদাগর তার চাকরকে বাজারে পাঠালেন কিছু প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে আনতে। চাকরটি কিছুক্ষণ পরই হন্তদন্ত হয়ে মনিবের কাছে ফিরে এলো। তাকে খুব ভীত ও চিন্তিত দেখাচ্ছিলো। তার সারা শরীর কাঁপছিলো। সওদাগর তাকে জিজ্ঞাসা করলেন,
– এই, তোমার কি হয়েছে? তুমি না বাজারে গিয়েছিলে?
চাকরটি ভাঙা ভাঙা শব্দে উত্তর দিলো,
– হুজুর, আমি বাজারে গিয়েছিলাম ঠিকই। বাজারে আমার সাথে মৃত্যূর দেখা হয়ে গেছে। সে আমার দিকে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে ছিলো। তাই ভয়ে পালিয়ে এসেছি। আমি এখানে থাকলে নিশ্চিত মারা পড়বো হুজুর। মৃত্যু আমাকেই নিতে এসেছে, আপনি আমাকে বাঁচান।
চাকরটি সওদাগরের পায়ের কাছে পড়ে হাউমাউ করে কাঁদতে লাগলো। সওদাগর বুঝতে পারছিলেন না কি করা উচিত। তিনি বললেন,
– আমি কিভাবে তোমাকে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচাতে পারি?
চাকরটি কাঁদতে কাঁদতে বললো,
– হুজুর, আপনি আমাকে একটি তেজী ঘোড়া দিন, আমি আজই এখান থেকে পালিয়ে সামারায় চলে যাবো। মৃত্যু আমাকে খুঁজে পাবে না।
সওদাগর বললেন,
– আচ্ছা, ঠিক আছে, তুমি ঘোড়া পাবে, কেঁদো না।

চাকরটি বাতাসের বেগে চলা একটি ঘোড়ায় চড়ে সামারার উদ্দেশ্যে রওয়া হয়ে গেলো। সওদাগর তাকে বিদায় জানালেন। বিদায়ের পর, সওদাগর ভাবলেন, ‘যাইতো, একবার বাজারে গিয়ে দেখি, এখনো মৃত্যু সেখানে আছে কিনা।’ মৃত্যুকে দেখার ইচ্ছে নিয়ে সওদাগর বাগদাদের বাজারের দিকে হাঁটা শুরু করলেন।
বাজারে অসংখ্য মানুষ। সওদাগর ভিড়ের মধ্যে মৃত্যুকে খুঁজতে লাগলেন। অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজির পর তিনি মৃত্যুকে পেয়ে যান। মৃত্যুকে ডেকে তিনি জিজ্ঞাসা করলেন,
– মৃত্যু, তুমি আমার চাকরটিকে চোখ রাঙিয়ে ভয় দেখিয়েছো কেন?
মৃত্যু উত্তর দিলো,
– আমি তো তোমার চাকরকে ভয় দেখাইনি। আমি শুধু অবাক হয়ে ওর দিকে তাকিয়ে ছিলাম।
সওদাগর বুঝতে না পেরে আবার প্রশ্ন করলেন,
– অবাক হয়ে তাকিয়েছো মানে…?
মৃত্যু বললো,
– আমি আসলে ওকে বাগদাদে দেখে অবাক হয়েছি। কেননা, আজ রাতে ওর সামারায় থাকার কথা, ওখানেই ওর জান কবজ করবো, ও বাগদাদে কি করছে-এই ভেবে আমি অবাক হয়েছি।

বাগদাদের একটি প্রচলিত গল্প অবলম্বনে লিখেছেন সুদীপ্ত সালাম।